দীর্ঘস্থায়ী ব্যাটারির নতুন স্মার্টফোন আনল ওয়ালটন

দীর্ঘ ব্যাটারি ব্যাকআপ। স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের কাছে অতি কাঙ্ক্ষিত বিষয়। তারা চান জরুরি প্রয়োজনের সময় চার্জ ফুরিয়ে যাবে না, এমন ফোন। আর তাই দীর্ঘস্থায়ী ব্যাটারির নতুন স্মার্টফোন এনেছে ওয়ালটন। ‘প্রিমো আরএম৩এস’ মডেলের নতুন এই ফোনে ব্যবহৃত হয়েছে ৪ হাজার মিলিঅ্যাম্পিয়ার লি-পলিমার ব্যাটারি। ফলে বহুল ব্যবহারেও ফোনে চার্জ থাকবে দীর্ঘক্ষণ। প্রয়োজনীয় কাজ, গেম খেলা বা বিনোদনে থাকা যাবে নিশ্চিন্ত।

ওয়ালটন গ্রুপের সিনিয়র ডেপুটি ডিরেক্টর (সেলুলার ফোন ডিপার্টমেন্ট) মো. মাহমুদুল হাসান বলেন, “কতক্ষণ চার্জ থাকে? স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের কাছে অতি কমন প্রশ্ন। বিশেষ করে যাদের বেশিরভাগ সময় ঘরের বাইরে কাটাতে হয়, তাদের প্রত্যাশা থাকে স্মার্টফোনে দীর্ঘক্ষণ ব্যাটারি ব্যাকআপের। আর ব্যবহারকারীদের চাহিদা বিবেচনা করেই আমরা বাজারে এনেছি শক্তিশালী ব্যাটারির ‘প্রিমো আরএম৩এস’ মডেলের নতুন এই স্মার্টফোন। যা গ্রাহককে দীর্ঘক্ষণ পাওয়ার ব্যাকআপ দেবে।”

জানা গেছে, মেটাল ডিজাইনের নতুন এই স্মার্টফোনে ব্যবহৃত হয়েছে ইন্টিগ্রেটেড ব্যাটারি সেভার ফিচার। যা ব্যাটারিকে ভালো রাখবে। সাশ্রয় করবে চার্জ। ফলে ব্যবহারকারী আরো বেশি পাওয়ার ব্যাকআপ পাবেন। ফোনের চার্জ কমে এলে এই ফিচার ব্যবহার করে প্রয়োজনীয় কাজ সারতে পারবেন।

ওয়ালটনের সেল্যুলার ফোন গবেষণা ও উন্নয়ন বিভাগের ডেপুটি ডিরেক্টর আরিফুল হক রায়হান জানান, এই হ্যান্ডসেটে ব্যবহৃত হয়েছে ৫.২ ইঞ্চির অন সেল আইপিএস এইচডি প্রযুক্তির ২.৫ডি কার্ভড (বাঁকানো) গ্লাসের ডিসপ্লে। ১৬.৭ মিলিয়ন কালার সাপোর্টেড ১২৮০ বাই ৭২০ রেজুলেশনের পর্দায় পাওয়া যাবে আরো স্পষ্ট ও জীবন্ত ছবি। এছাড়াও, ২.৫ডি কার্ভড গ্লাস ডিসপ্লে প্যানেল ব্যবহারের ফলে স্ক্রিন টাচে গ্রাহক আরো বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন।

নতুন এই ফোনের উচ্চগতি নিশ্চিতে আছে ১.৩ গিগাহার্জের অক্টাকোর প্রসেসর। উন্নত পারফরমেন্সের জন্য এতে ব্যবহৃত হয়েছে ৩ গিগাবাইট র‌্যাম। গ্রাহককে উন্নতমানের গেমিং ও প্রাণবন্ত ভিডিওর অভিজ্ঞতা দিতে গ্রাফিক্স হিসেবে আছে মালি-টি৭২০।

প্রয়োজনীয় ফাইল সংরক্ষণে রয়েছে এতে রয়েছে ৩২ গিগাবাইট স্টোরেজ। যা মাইক্রো এসডি কার্ডের মাধ্যমে ১২৮ জিবি পর্যন্ত বাড়ানো যাবে। ফলে অনেক বেশি ছবি, ভিডিও, ডকুমেন্টস ইত্যাদি সংরক্ষণ করা যাবে।

‘প্রিমো আরএম৩এস’ স্মার্টফোনের সুরক্ষায় যুক্ত হয়েছে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর। যার মাধ্যমে আঙ্গুলের ছোঁয়ায় নিমেষেই ফোনটি আনলক করা যাবে। ফলে স্ক্রিন আনলকে পাসওয়ার্ড টাইপ করা বা প্যাটার্ন আঁকার প্রয়োজন পড়বে না। ব্যবহারকারী ছাড়া আর কেউ ফোন আনলক করতে পারবে না।

এই ফোনের পেছনে আছে এলইডি ফ্ল্যাশসহ বিএসআই সেন্সরযুক্ত ১৩ মেগাপিক্সেলের অটোফোকাস ক্যামেরা। ফলে অন্ধকার বা অল্প আলোতেও নিঁখুত ও স্পষ্ট ছবি বা ভিডিও তোলা সম্ভব হবে। গ্রাহকের রঙ্গিন ও স্মরণীয় সব মুহূর্ত থাকবে ফ্রেমবন্দি। উত্তম সেলফি তোলার জন্য এই স্মার্টফোনের ফ্রন্টে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেলের শক্তিশালী ক্যামেরা। ক্যামেরায় নরমাল মোড ছাড়াও ফেস বিউটি, ফেস ডিটেকশন, ডিজিটাল জুম, সেলফ-টাইমার, এইচডিআর, প্যানোরমা, সিন মোডসহ বিভিন্ন আকর্ষণীয় মোডে ছবি তোলা যাবে। উভয় ক্যামেরার ফেস বিউটি ফিচার গ্রাহককে দেবে দাগমুক্ত মসৃণ ও উজ্জ্বল মুখম-লের ছবি। ছবির স্বাভাবিক রঙ ঠিক থাকবে। ছবি হবে স্পষ্ট ও নিখুঁত। পেছনের ক্যামেরা ব্যবহার করে ফুল এইচডি মানের ভিডিও ধারণ করা যাবে।

ডুয়াল সিম সুবিধার ফোনটি থ্রিজি ও ফোরজি সমর্থন করে। অ্যান্ড্রয়েডের সবচেয়ে আকর্ষণীয় ও উন্নত সংস্করণ নূগাট ৭.০ অপারেটিং সিস্টেমে পরিচালিত হওয়ায় এই ফোনের কার্যক্ষমতা ও গতি হবে বেশি। একই সঙ্গে পাওয়া যাবে দারুণ কিছু অতিরিক্ত ফিচার। ডুরা স্পিড প্রযুক্তি অব্যবহৃত অ্যাপস ইনএকটিভ করে রাখবে। ফলে ফোনের গতি ও পারফরমেন্স বাড়বে এবং ব্যাটারি সাশ্রয় হবে। মাল্টি-উইন্ডো প্রযুক্তি থাকায় একই সঙ্গে ডিসপ্লেতে একাধিক অ্যাপস ব্যবহার করা যাবে।

কানেক্টিভিটির জন্য রয়েছে ওয়াই-ফাই, ব্লুটুথ ভার্সন ৪, মাইক্রো ইউএসবি ২, ল্যান, হটস্পট, ওটিএ ও ওটিজি। মাল্টিমিডিয়া ফিচার হিসেবে আছে ফুল এইচডি ভিডিও প্লে-ব্যাক ও রেকডিং সুবিধাসহ এফএম রেডিও।

আকর্ষণীয় মকা ও সোনালি-এই দুটি ভিন্ন রঙে সারা দেশে বিস্তৃত ওয়ালটন প্লাজা ও ব্রান্ডেড আউটলেটে পাওয়া যাচ্ছে নতুন এই ফোন। দাম মাত্র ১৪ হাজার ৪৯০ টাকা। ফোনটিতে থাকছে ১ বছরের বিক্রয়োত্তর সেবা।

উল্লেখ্য, গ্রাহকদের জন্য ওয়ালটন প্রতিনিয়ত বাজারে ছাড়ছে উচ্চ গুণগতমান ও অত্যাধুনিক ফিচারসমৃদ্ধ নতুন নতুন মডেলের স্মার্টফোন। দেশের সকল ওয়ালটন প্লাজা ও ব্র্যান্ডেট আউটলেটে ০% ইন্টারেস্টে ৬ মাসের ইএমআই সুবিধায় কেনা যায় যেকোনো মডেলের ওয়ালটন স্মার্টফোন। রয়েছে ১২ মাসের কিস্তি সুবিধাও।

প্রযুক্তিকথন/ডেস্ক/

 

Related posts

Leave a Comment