ঈদে বেড়ানোর যত সুন্দর জায়গা

 

ঈদের স্মৃতিকে মধুময় করে তুলতে ছুটির সময় ঘুরে আসতে পারেন দেশের ভেতরেই সুন্দর কিছু জায়গায়।ঈদ মানেই আনন্দ, ঈদ মানেই সবার উৎসব। পরিবার-পরিজন, বন্ধু-বান্ধবদের একত্র করার উপলক্ষ ঈদ। ঈদের ছুটির দিনগুলোতে সবাই মিলে ঘুরে বেড়াতে পছন্দ করেন অনেকে। দেশের মধ্যে এমন কিছু জায়গা আছে পরিবার বা বন্ধুদের নিয়ে যেখানে বেড়াতে যেতে পারেন। উল্লেখযোগ্য স্থানগুলোর পরিচিতি দেওয়া হলো:

 

সিলেট:

পাহাড়-টিলাঘেরা সিলেট যেন প্রকৃতির অপরূপ লীলাভূমি।  দুটি পাতা একটি কুড়ির সবুজ চা বাগানগুলো এই বর্ষা মৌসুমে হয়ে ওঠে আকর্ষণীয়। ঈদের সময় বেড়ানোর দারুণ জায়গা সিলেট। ঈদের ছুটিতে মুখরিত হয়ে ওঠে সিলেটের পর্যটন স্পটসমূহ।  প্রকৃতি কন্যা জাফলং, লালাখাল, রাতারগুল, বিছনাকান্দি, পান্তুমাইয়ের পাশাপাশি সিলেটের বিভিন্ন পার্কও হয়ে ওঠে লোকারণ্য।  ভারতের মেঘালয় পাহাড়ঘেঁষা প্রকৃতির অপরূপ লীলাভূমি জাফলং, পান্তুমাই ঝর্ণা, বিছনাকান্দির স্বচ্ছ পানি আর সোয়াম ফরেস্ট খ্যাত রাতারগুল এক নজর দেখতে ভিড় জমান পর্যটকরা। প্রকৃতির টানে অনেকেই ছুটে আসেন সিলেটে ঈদের ছুটি কাটাতে। তাদের বাঁধ ভাঙ্গা উচ্ছ্বাসে পর্যটন স্পটগুলোতে সৃষ্টি হয় অন্যরকম আবহের। শহরতলীর মালনীচড়া চা-বাগান থেকে শুরু করে জাফলং টানতে পারে আপনাকেও।  তবে এ সময় কিছু সাবধানতাও জরুরি।  যারা সিলেটে থাকার জায়গার কথা ভাবছেন অনলাইন হোটেল বুকিং প্ল্যাটফর্ম জোভাগোতে ঢু মারতে পারেন।

কুয়াকাটা:

সাগরকণ্যা কুয়াকাটার সৌন্দর্য়ের মায়ায় পড়েননি এমন কেউ আছেন নাকি?সূর্য ওঠার মনোরম দৃশ্য আর প্রকৃতির স্নিগ্ধতা মুগ্ধ করবে আপনাকে। ঈদের ছুটি কাজে লাগিয়ে বেড়িয়ে আসতে পারেন কুয়াকাটা। সূর্য উদয় দেখার দৃশ্য যে একবার দেখেছে সে কখনো ভুলতে পারবে না। এছাড়া কাউয়ার চরে দেখতে পাবেন লাল কাঁকড়ার ছুটোছুটি। কুয়াকাটাতে রয়েছে জেলে পল্লী। সৈকতের পশ্চিম দিকেও চাইলে দেখে আসতে পারেন।প্রকৃতির আরো মনোরম দৃশ্য উপভোগ করতে চাইলে আপনি ফাতরার চর এবং লেবুর চরও ঘুরে আসতে পারেন।

সাজেক ভ্যালি:

সাদা মেঘের কোলে পাহাড়ের সবুজ। সাজেক ভ্যালি যেন মনোরোম স্নিগ্ধতার এক প্রতিচ্ছবি। ঘুরে আসতে চান সেই স্বপ্ন রাজ্যে? সাজেক ভ্যালি বাংলাদেশের রাঙ্গামাটি জেলার বাঘাইছড়ি উপজেলার অন্তর্গত সাজেক ইউনিয়নের একটি বিখ্যাত পর্যটন আকর্ষণ। রাঙামাটির একেবারে উত্তরে অবস্থিত এই সাজেক ভ্যালিতে রয়েছে দুটি পাড়া- রুইলুই এবং কংলাক। মেঘপুরী সাজেক ভ্যালিতে যাওয়ার আগে রাঙামাটির সর্বশেষ পরিস্থিতি সম্পর্কে খোঁজ নিন।

 

কক্সবাজার:

বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের সৌন্দর্যকে নতুন করে পরিচিত করানোর কোনো প্রয়োজন আছে কি? আপনারা ইতিমধ্যে অনুভব করতে পারছেনে ঈদের ছুটিতে বেড়াতে যাওয়ার জন্য এটিই হতে পারে সবচেয়ে উপযুক্ত স্থান। কক্সবাজার গেলে আপনি পাথরে আবৃত ইনানী বিচ এবং নীল ঢেউয়ের হিমছড়ি বিচ দেখে আসতে ভুলে যাবেন না যেন! আর আপনি যদি ভ্রমনকে আরো রোমাঞ্চকর করতে চান তাহলে অবশ্যই ’কানা রাজার’ গুহা দেখে আসবেন।

 

বান্দরবান:

বান্দরবানের সতেজ সবুজ পাহাড় আর ঝর্না আপনাকে মুগ্ধ করবেই। আর ভ্রমনে আপনি যা চান বান্দরবান আপনাকে তাই দিতে সক্ষম। এখানে ‘বুদ্ধ ধাতু যাদি’ নামে চমৎকার একটি মন্দির আছে। তাছাড়া পর্বত ভ্রমনের জন্য আছে ‘নীলগিরি’, ‘নীলাচল’ আর ‘কেওকারাডং’ এভাবে বান্দরবানে আপনার ভ্রমনের তালিকা দীর্ঘই হতে থাকবে!

 

আপনার ঈদভ্রমনকে আরো উপভোগ্য এবং নির্ঞ্ঝাট করার জন্য জোভাগো চেষ্টা করে যাচ্ছে! আমরা আপনাদের ভ্রমন সঙ্গী হিসাবে চমৎকার কিছু হোটেলে সুলভমূল্যে থাকার বন্দোবস্ত করছি, যা আপনাদের স্মৃতি হয়ে থাকবে।এই সুন্দর মনোরোম প্রাকৃতিক দৃশ্য ভ্রমনের সুযোগ কে হাতছাড়া করতে চায়! তাই আর দেরী না করে আজই জোভাগোর মাধ্যমে হোটেল বুকিং দিয়ে আপনার ভ্রমনকে সহজ করে নিন।

 

#ঈদ#সাজেক#বিছানাকান্দি#কেওকারাডং#নীলগিরি#নীলাচল#কুয়াকাটা#জোভাগো#

Related posts

Leave a Comment