দেশে প্রথম রোবট রেস্টুরেন্ট

রাজধানী ঢাকায় আজ বুধবার থেকে রোবট রেস্টুরেন্টের যাত্রা শুরু হলো। এটি বাংলাদেশে প্রথম রোবট রেস্টুরেন্ট।

এ রেস্টুরেন্টের বৈশিষ্ট্য হচ্ছে-এখানে মানুষের পরিবর্তে রোবটই অতিথিদের খাবার সরবরাহ করবে। মিরপুর রোডে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন ও আসাদগেটের কাছে প্রধান সড়কের ফ্যামিলি ওয়ার্ল্ড টাওয়ারের দ্বিতীয় তলায় এই রেস্টুরেন্টটির অবস্থান।

বুধবার রেস্টুরেন্টটির নিজস্ব অডিটরিয়ামে আনুষ্ঠানিকভাবে এর যাত্রা শুরু উপলক্ষে রেস্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষ এবং রোবট প্রস্তুতকারি সংস্থা এইচ জেড এক্স ইলেকট্রনিক টেকনোলজি কোম্পানি যৌথ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। এতে রেস্টুরেন্টের পরিচালক রাহিন রাইয়ান নবী, এইচ জেড এক্স ইলেকট্রনিক টেকনোলজি কোম্পানির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ম্যাক্স সোয়াজ, কাস্টমার রিলেশন ম্যানেজার তানভিরুল হক উপস্থিত ছিলেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জানানো হয়, বাংলাদেশে এটিই প্রথম রোবট রেস্টুরেন্ট, যেখানে রোবটের মাধ্যমে কাস্টমারদের খাবার সরবরাহ করা হবে। এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের জন্য একটি নতুন মাইলফলক এবং নতুন দিগন্তের সূচনা হলো। বাংলাদেশ ও চীন যৌথভাবে এ রেস্টুরেন্টটি পরিচালনা করবে বলে সম্মেলনে জানানো হয়। শিশুদের বিনোদন ও খাবারের বিষয়টি চিন্তা করেই এ ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে রেষ্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

রেস্টুরেন্টটির পরিচালক রাহিন রাইয়ান নবী বলেন, ‘অনেক সময় দেখা যায় ওয়েটাররা কয়েক ঘণ্টা কাজ করার পরে ক্লান্ত হয়ে পড়েন। সেই ক্লান্ত অবস্থায়ই তারা কাস্টমারদের খাবার সরবরাহ করতে বাধ্য হন। কিন্তু রোবট কখনোই ক্লান্ত হবে না। তাই যখন রোবট খাবার সরবরাহ করবে তখন এটি কাস্টমারকে আরো ভাল সেবা দিতে পারবে। সেটি সব বয়সের মানুষের জন্য অত্যন্ত রোমাঞ্চকর পরিবেশও তৈরি করবে। বিশেষ করে শিশুরা সবচেয়ে বেশি রোমাঞ্চিত হবে।

তিনি বলেন, খাবারের দাম সাধ্যের মধ্যেই রাখা হবে যাতে সব শ্রেণির মানুষই এই সেবা নিতে পারেন। শিশুদের জন্য বিশেষ খাবার থাকছে। খাবারের মান ও পারিবারিক পরিবেশ অবশ্যই বজায় রাখা হবে। যাতে করে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে যে কেউ এখানে খেতে আসতে পারেন। যারা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন তাদের সবাই রোবটের কার্যক্রম উপভোগ করেন।

রাহিন রাইয়ান নবী বলেন, একজন ওয়েটারের পক্ষে সবসময় খাবারের গুণগতমান নিশ্চিত করা ও জীবানুমুক্ত রাখা সম্ভব হয় না। তাই আমরা রোবট দিয়ে এসব কাজ করাচ্ছি। রেস্টুরেন্টটিতে প্রাথমিকভাবে দুইটি রোবট কাজ শুরু করবে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত এইচ জেড এক্স ইলেকট্রনিক টেকনোলজি কোম্পানির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ম্যাক্স সোয়াজ বাংলাদেশে রোবট ডিজিটালাইজেশনের জন্য যেকোনো সহযোগিতা করতে সবসময় প্রস্তুত রয়েছে বলে জানিয়েছেন।

প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, চেয়ারম্যান আনোয়ারুন নবী মজুমদারের দুই সন্তান তাসিন রওনাক নবী এবং রাহিন রাইয়ান নবী বিদেশে উচ্চশিক্ষার জন্য অধ্যয়নরত অবস্থায় চীন সফরে যান। সেখানে গিয়ে তারা চীনের রোবট দ্বারা খাবার সরবরাহ পদ্ধতি দেখে আকৃষ্ট হয়। তারা তখন সংশ্লিষ্ট রোবট কোম্পানির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ম্যাক্স সোয়ার্জের সঙ্গে যোগাযোগ করেন এবং বাংলাদেশে রোবট রেস্টুরেন্টের চালুর বিষয়ে আলোচনা করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে এটি বাংলাদেশে চালু করা হয়। প্রাথমিক অবস্থায় আাগামী একমাসের জন্য শিশুদের ‘কিডমিল’ এবং দেশীয় খাবারের সেট ফুড পরিবেশ করা হবে। যার মূল্য সর্বোচ্চ ৫০০ টাকার বেশি হবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *