চলতিমাসেই কম্পিউটার রপ্তানি করবে বাংলাদেশ

আমরা কম্পিউটার আমদানি কারক দেশে থেকে উপাদনকারী দেশ হয়েছি। আশার কথা হলো, আমরা এই মাসেই নেপাল ও ভুটানে দেশের তৈরি কম্পিউটার রপ্তানি করবো বলে জানান মোস্তাফা জব্বার। দেশের সর্ববৃহত্তম আইটি মার্কেট কম্পিউটার সিটি সেন্টারে ৫ দিনব্যাপী ‘ডিজিটাল আইসিটি ফেয়ার-২০১৮’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠিত মাননীয় ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী।

এই সময় তিনি বলেন, দেশের কম্পিউটার বাজার অনেক বড় হয়েছে। দেশ পরিবর্তন হয়েছে। একটা সময় দেশে প্রযুক্তি পণ্যে আসতে সময় লাগতো, এখন আর সময় লাগে না। মানুষ দ্রুত প্রযুক্তি পণ্যে হাতে পাচ্ছে। বর্হিবিশ্বের সাথে তাল মিলেয়ে সর্বশেষ প্রযুক্তি পণ্যে এখন বাংলাদেশে পাওয়া যাচ্ছে।

মন্ত্রী আরো বলেন, ৫৬০ জিবিপিএস ইন্টারনেট বর্তমানে ব্যবহার করা হচ্ছে। আমাদের ইন্টারনেট রয়েছে ১৭০০ জিবিপিএস। আমি দেখতে চাই আগামীতে মেড ইন এসার, ডেল স্যামসাংসহ আরো বিদেশী প্রতিষ্ঠান দেশে প্রযুক্তি পণ্যে তৈরি করবে। ২০১৮ সালের মধ্যে দেশের সকল এলাকায় ইন্টারনেট পৌঁছে দিতে চাই, শুধু ইন্টারনেট না উচ্চ গতির ইন্টারনেট দেয়া হবে।

অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা ছিলেন মুক্তিযুদ্ধকালীন ঢাকা জেলা কমান্ডার ও সাবেক সাংসদ এবং বৃহত্তর এলিফ্যান্ট রোড দোকান মালিক সমিতির প্রধান উপদেষ্টা মোস্তফা মহসীন মন্টু বলেন, মোবাইলের মাধ্যমে হাতেই মুঠো্ই বিশ্বকে পাচ্ছি। মাঝি, রিক্সচালক, কৃষক সবাই এখন মোবাইল ব্যবহার করে তাদের প্রয়োজনীয় কাজ করতে পারছে। ইন্টারনেটের অপব্যবহার রোধ করতে হবে। ইন্টারনেটের যেমন ভালো ব্যবহার আছে তেমন এর অপব্যবহার রয়েছে। এই সেক্টকে আমাদের বিকাশমান করতে সবাইকে একসাথে কাজ করতে হবে।

৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ বুধবার সকাল ১১ টায় হয়েছে। এ উপলক্ষে কম্পিউটার সিটি সেন্টারের ১ তলায় এক বর্ণাঢ্য উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন শিক্ষাবিদ ও ইউনিভার্সিটি এশিয়া প্যাসিফিক এর উপাচার্য অধ্যাপক ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী, এফবিসিসিআই এর সভাপতি মোঃ শফিউল ইসলাম (মহিউদ্দিন), ঢাকা মহানগর দক্ষিন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব শাহে আলম মুরাদ, বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির সভাপতি আলী আশফাক, বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির চেয়ারম্যান মোঃ হেলাল উদ্দিন, ঢাকা দক্ষিন সিটি কর্পোরেশনের ১৮ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জসীম উদ্দিন আহমেদসহ বিশিষ্টজনেরা।

এছাড়াও মেলার আয়োজক কমিটির সকল সদস্য, বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সংবাদকর্মী এবং দেশের খ্যাতিমান আইসিটি ব্যবসায়ীরা উপস্থিত ছিলেন।

মেলার প্ল্যাটিনাম স্পন্সর হল এসার, ডেল, এইচপি, লজিটেক, এক্সট্রিম। গোল্ড স্পন্সর হল আসুস, এফোরটেক, লেনেভো।
সিলভার স্পন্সর হল টিপি-লিংক, ডি-লিংক, ইউসিসি। স্পন্সর টেন্ডা এবং গেমিং পাটনার গিগাবাইট। মেলায় বিশ্বের অত্যাধুনিক প্রযুক্তি পণ্যসমূহ সুলভ মুল্যে পাওয়া যাবে।

ডিজিটাল আইসিটি মেলায় বিশেষ আয়োজন হিসেবে থাকছে-শিশুদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, গেমিং জোন এবং আকর্ষনীয় নানা আয়োজন। এছাড়াও মেলা চলাকালীন প্রবেশ টিকেটের উপর র‌্যাফেল ড্র অনুষ্ঠিত হবে। মেলার প্রবেশ টিকেটের মূল্য রাখা হয়েছে দশ টাকা মাত্র।