ফেসবুককে পিছনে ফেলে শীর্ষে ইউটিউব!

যুক্তরাষ্ট্রে অনলাইন প্লাটফর্ম বা ওয়েবসাইট ব্যবহারের ক্ষেত্রে বিনামূল্যের ভিডিও স্ট্রিমিং ও শেয়ারিং সাইট ইউটিউব সবচেয়ে জনপ্রিয়। দেশটির কলেজ পড়ুয়া প্রায় সব মানুষই ইউটিউবে ভিডিও দেখেন, প্রকাশ করেছে প্রযুক্তি সাইট ভার্জ-এর প্রতিবেদনে।

গবেষণা প্রতিষ্ঠান পিউ রিসার্চ সেন্টার-এর এক জরিপে দেখা গেছে দেশটির ৭৩ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্ক ইউটিউব ব্যবহার করেন আর ১৮-২৪ বছর বয়সীদের ক্ষেত্রে হারটা ৯৪ শতাংশ। আর দেশটিতে প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে ৩৫ শতাংশই ফেসবুক অধীনস্থ ইনস্টাগ্রাম ব্যবহার করেন, গবেষণা প্রতিষ্ঠান পিউ রিসার্চ সেন্টার-এর এক জরিপে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

সামাজিক মাধ্যমের ক্ষেত্রে শীর্ষস্থানটা আগের মতোই নিজেদের দখলে রেখে দিয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় সামাজিক মাধ্যম ফেসবুক, তবে তা ৬৫ বা তার চেয়ে বেশি বয়স্কদের ক্ষেত্রে নয়। যুক্তরাষ্ট্রে প্রাপ্ত বয়স্কদের মধ্যে ৬৮ শতাংশ ফেসবুক ব্যবহার করেন, যা ২০১৬ সালের তুলনায় অপরিবর্তিত। দৈনিক ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা ২০১৬ সালের ৭৬ শতাংশ থেকে ২০১৭ সালে হয়েছে ৭৪ শতাংশ।

২০১৬ সালের তুলনায় সংখ্যাটা সাত শতাংশ বেড়েছে বলে উল্লেখ করা জরিপে আরও জানা যায়, তরুণ বিশেষ করে ১৮ থেকে ২৪ বছর বয়সীদের মধ্যে ইনস্টাগ্রাম, স্ন্যাপচ্যাট আর টুইটারের মতো সামাজিক মাধ্যমগুলো আরও জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

অংকের হিসাবে কিছুটা উন্নতি দেখিয়েছে মাইক্রোব্লগিং সাইট টুইটার। ২৪ শতাংশ মার্কিন প্রাপ্তবয়স্ক এটি ব্যবহার করেন, ২০১৬ সালে এই অংক ছিল ২১ শতাংশ।

১৮ থেকে ২৪ বছর বয়সীদের মধ্যে ফেসবুকের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রতিষ্ঠান স্ন্যাপচ্যাট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৭৮ শতাংশ, অংকটা ২৫ থেকে ২৯ বছর বয়সীদের ক্ষেত্রে ৫৪ শতাংশ।

সামাজিক মাধ্যম ব্যবহারকারীরা একাধিক প্লাটফর্ম ও এগুলোর অ্যাপ ব্যবহার করলেও মাত্র তিন শতাংশ ব্যবহারকারী বলেন, তারা এসব প্লাটফর্মে পাওয়া তথ্যে অনেক বেশি আস্থা রাখেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *